1. dipanchalbarguna@gmail.com : dipanchalAd :
"প্রত্যাবর্তনের চার দশক,শেখ হাসিনার বদলে দেওয়া বাংলাদেশের,অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা" - dipanchalnews
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:০৯ পূর্বাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ :
বরগুনা পৌর পান-সুপারী ব্যবসায় সমবায় সমিতি লিঃ এর কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত বরগুনায় মহিলা পরিষদের উদ্যোগে নারী নির্যাতন প্রতিরোধপক্ষ ২০২২ অনুষ্ঠিত মানবতার আরেক নাম নব-গঠিত বরগুনা পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ মানবতার আরেক নাম নব-গঠিত বরগুনা পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগ “ধ্রুবতারা” বরগুনা জেলা কমিটির সভাপতি সুমন সিকদার, সম্পাদক অর্পিতা বরগুনায় শ্রমিকলীগের উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টু এর ২য় মৃত্যু বার্ষিকী পালিত জেলা আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদককে শ্রমিক লীগের শুভেচ্ছা জেলা আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সভাপতিকে শ্রমিক লীগের শুভেচ্ছা প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ শ্রমিক লীগের উদ্যোগে বরগুনায় জেল হত্যা দিবস পালিত

“প্রত্যাবর্তনের চার দশক,শেখ হাসিনার বদলে দেওয়া বাংলাদেশের,অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা”

  • আপলোডের সময় : সোমবার, ১৬ মে, ২০২২
  • ১১২ বার নিউজটি দেখা হয়েছে

১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যার পরে দেশব্যাপী বিশৃঙ্খলা ও অড়াজগতা ছড়িয়ে পড়ে।বিদেশ থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা-শেখ হাসিনা, ও -শেখ রেহানা।এই সময় বাংলাদেশে আওায়ামী লীগের সাংগাঠনিক কার্যক্রমে চরম হতাশা ও দুর্দশায় স্থবিড় হয়ে পড়ে।
১৯৮১ সালের ১৪,১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় অধিবেশনের সম্মেলনে দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে সভাপতি করে কমিটি ঘোষনা হয়।পরবর্তীতে তিনি ১৯৮১ সালের ১৭ মে বাঙালী জাতিকে দুর্দশা ও সঙ্কট থেকে মুক্ত করার জন্য নিজের জীবনের বাজি নিয়ে স্বদেশে আগমন করেন।

তৎকালীন সময় শেখ হাসিনার দেশে ফেরার সাহসী পদক্ষেপটি তার জন্য সুখকর ছিলো না।স্বপরিবারের মৃত্যুর যন্ত্রণা বুকে নিয়ে দেশের সাধারন জনগনদের সাথে নিয়ে স্বৈরাচার জেনারেল জিয়া ও জেনারেল এরশাদ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রাম গড়ে তুলেন তিনি একা।
দীর্ঘদিন আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন বঙ্গবন্ধু তনয়া দেশরত্ন শেখ হাসিনা।এর পর থেকেই উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় দেশ এগিয়ে যেতে থাকে বঙ্গবন্ধুর সপ্নের সোনার বাংলা গড়ার অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রায়।

বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে মানবতার জননী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশ থেকে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা হতে যাচ্ছে; যা মোটেও সহজ কাজ নয়। এসব একমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে সম্ভব হচ্ছে।

দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা, এমজিডি অর্জন, এসডিজি বাস্তবায়নসহ শিক্ষা, স্বাস্থ্য, লিঙ্গসমতা, কৃষি দারিদ্র্যসীমা হ্রাস, গড় আয়ু বৃদ্ধি, রপ্তানিমুখী শিল্পায়ন এবং বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলে পোশাক শিল্প, ঔষধ শিল্প, রপ্তানি আয় বৃদ্ধিসহ নানা অর্থনৈতিক সূচক বৃদ্ধি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দূরদৃষ্টি ও পরিশ্রমের ফসল। এছাড়া চলমান রয়েছে পদ্মা সেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকা মেট্রোরেলসহ, দেশের মেগা প্রকল্পগুলো।

প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সিদ্ধান্ত ছিলো অত্যান্ত যুগোপযোগী সময়নির্ভর সাহসী পদক্ষেপ।তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে বাঙালী ফিরে পেয়েছে তাদের অধিকার ও স্বগৌরব।চারদশকের লড়াই-সংগ্রাম,সাফল্য-ব্যার্থতায়,উন্নয়ন-অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ হয়েছে আরো শক্তিশালী ও সমৃদ্ধশালি।

লেখক: ফাহাদ হাসান তানিম, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বরগুনা জেলা শাখা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুণ :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর :
© All rights reserved © 2020 The Daily Dipanchal
Customized By BlogTheme