1. dipanchalbarguna@gmail.com : dipanchalAd :
বিকেলে দাদনের ১০ হাজার টাকার জন্য মারধর সকালে লাশ উদ্ধার, হত্যা মামলা দায়ের গ্রেপ্তার-১ - dipanchalnews
বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২, ১০:৩০ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ :
দক্ষিণাঞ্চলের স্বপ্নের দুয়ার খুলছে আজ হাইকোর্টে দুই মামলায় খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিন টাঙ্গাইলে নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপিত- বরগুনায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে হজ্জ বিষয়ক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত মঠবাড়িয়ায় হাত-পা বেঁধে ৫ম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা, বৃদ্ধ গ্রেপ্তার টাংগাইলে জাতীয় শিশু কিশোর ইসলামী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান- বরগুনায় ইসলামি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দুঃস্থদের মাঝে সরকারি যাকাত ফান্ডের চেক বিতরণ জেলায় শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ নির্বাচিত মাওঃ মুহাম্মদ ইউনুস আলী বরগুনায় কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত “প্রত্যাবর্তনের চার দশক,শেখ হাসিনার বদলে দেওয়া বাংলাদেশের,অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রা”

বিকেলে দাদনের ১০ হাজার টাকার জন্য মারধর সকালে লাশ উদ্ধার, হত্যা মামলা দায়ের গ্রেপ্তার-১

  • আপলোডের সময় : রবিবার, ২৫ জুলাই, ২০২১
  • ৯৮ বার নিউজটি দেখা হয়েছে

আমতলী প্রতিনিধি : বরগুনার তালতলী উপজেলার তেতুল বাড়িয়া গ্রামে ছেলের গ্রহন করা দাদনের ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করতে না পারায় বৃহস্পতিবার বিকেলে মারধরের পর শুক্রবার সকালে জাহাঙ্গীর হাওলাদার (৫৫) নামের এক ভাষমান কিটনাষক ব্যাবসায়ীর নীজ বাড়ি থেকে গলায় রশি পেচানো লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতের ছেলে আলিম মিয়া বাদী হয়ে শুক্রবার দুপুরে দাদন ব্যবসায়ী জহিরুলকে প্রধান আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। মামলার পরপরই ঘাতক দাদন ব্যবসায়ী জহিরুলকে নিন্দ্রা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিহত জাহাঙ্গীর তেতুলবাড়িয়া গ্রামের আমজেদ হাওলাদারের ছেলে। নিহত জাহাঙ্গীর হাওলাদারের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, জাহাঙ্গীর হাওলাদার একজন ভাষমান কীটনাষক ব্যাসায়ী। ২০১৮ সালের দিকে দাদন ব্যবসায়ী একই গ্রামের আব্দুল মজিদ হাওলাদারের ছেলে জহিরুলের কাছ থেকে ছেলে আলিম মিয়ার জাল ও নৌকা তৈরির জন্য ৯০ হাজার টাকা দাদন গ্রহন করেন। দাদনের ৯০ হাজার টাকাসহ নিজের কাছে থাকা আরো টাকা দিয়ে প্রায় দের লাখ টাকা খরচ করে জাল ও নৌকা তৈরী করে নদীতে মাছ শিকার করতে যায় আলিম। নদীতে মাছ না থাকায় এবং মাছ ধরায় নিষেধাঞ্জা থাকায় দাদনের টাকা পরিশোধ করতে পারছিলো না আলিম মিয়া। দাদনের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় দাদন ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলাম টাকা পরিশোধের জন্য বিভিন্ন সময় তাদের মানসিকভাবে চাপ প্রয়োগ করেন।

একপর্যায়ে জাল ও নৌকা লোকসান দিয়ে দাদন ব্যবসায়ী জহিরুলের কাছেই ৭০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেন। বাকি ২০ হাজার টাকা পরিশোধের জন্য দাদদ ব্যবসায়ী জহিরুলের নিকট থেকে ১ মাস সময় নেয় জাহাঙ্গীর ও তার ছেলে আলিম। এক মাস পর ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করেন এবং বাকি ১০ হাজার টাকার জন্য আরো অনেক অনুনয় করে এক মাস সময় নেন আলিম এবং তার বাবা জাহাঙ্গীর। সময় পার হওয়ার সাথে সাথেই ফের চাপ প্রয়োগ করতে থাকেন দাদন ব্যবসায়ী জহিরুল ইসলাম। দাদনের পাওনা ১০ হাজার টাকা পরিশোধ করতে না পারায় এই ঘটনার জের ধরে বৃহস্পতিবার (২২জুলাই) বিকালে জাহাঙ্গীর হাওলাদার তার ছেলে আলিমসহ পরিবারের লোকজদের মারধর করেন জহিরুল ও তার সন্ত্রাসী বাহিনি। এ ঘটনার পর নিজ বাড়ির টয়লেটের সামনে থেকে পরের দিন শুক্রবার সকালে গলায় রশি পেচানো অবস্থায় জাহাঙ্গীরের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনার পর থেকে দাদন ব্যবসায়ী জহিরুল পলাতক ছিলো। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত জহিরুল কে আটক করে। নিহতের স্ত্রী শেফালী বেগম বিলাপ করছিল আর বলছিল, ‘দাদনের টাহার লইগ্যা বৃহসইতবার বিয়ালে জহিরুল আমার ছেলে,স্বামী, পোলার বউ ও আমারে মাইর ধর করে। রাইতে আমার স্বামীকে বিছানায় না দেইখ্যা ব্যামালা বিরচাইয়া পাইনাই। ব্যাইন্যারাইতে পায়খানার সামনে দরি দিয়া বান্দা অবস্থায় মোর স্বামীর লাশ দ্যাখতে পাই। মোর স্বামীরে জহিরুল ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী মাইর‌্যা হালাইয়া রাখছে। আমি এই আর বিচার চাই।’ নিহত জাহাঙ্গীরের ছেলে আলিম কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, ‘মুই জহিরুলেডে গোনে ৯০ হাজার টাহা নিয়া সব দিয়া দিছি। খালে মাছ নাই হেইর লইগ্যা ১০ আজার টাকা দিতে পারি নাই। হেইয়ার রইগ্যা বৃহস্পতিবার বিয়ালে মোর বাহেরে, মোরে মায়রে বাড়ি আইয়া ব্যামালা মাইর ধইর করছে। হেতেই থামেনাই জহিরুল। শুক্ররবার বেইন্যা রাইতে আইয়া মোর বাহেরে গলায় দড়ি প্যাচাইয়া মাইর‌্যা হালাইছে। মুই এই আর বিচার চাই।’

তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান মিয়া বলেন এঘটনায় নিহতের ছেলে আলিম মিয়া বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে। মামলার পরপরই প্রদান আসামী জহিরুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি একটি হত্যাকা-। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনার মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুণ :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর :
© All rights reserved © 2020 The Daily Dipanchal
Customized By BlogTheme