1. dipanchalbarguna@gmail.com : dipanchalAd :
বেতাগীতে পল্লী বিদুতের ভুতুরে বিল নিয়ে ক্ষুব্ধ গ্রাহকরা - dipanchalnews
রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৪৬ অপরাহ্ন

বেতাগীতে পল্লী বিদুতের ভুতুরে বিল নিয়ে ক্ষুব্ধ গ্রাহকরা

  • আপলোডের সময় : শুক্রবার, ১৯ জুন, ২০২০
  • ২৫৫ বার নিউজটি দেখা হয়েছে

স্বপন কুমার ঢালী, বেতাগী : বরগুনার বেতাগী পৌরসভা ও উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের গ্রামগুলোর পল্লী বিদ্যুতের মনগড়া ভুতুরে বিল নিয়ে গ্রাহকদের মধ্যে তোলপাড় চলছে। পল্লী বিদ্যুতে কর্মরত অনেকেই বলেছেন সার্ভিস তারে ব্যাপক বিদ্যুত ব্যয় হয় যা মিটার রিডিং দেখা যায় না। ফলে পল্লী বিদ্যুতের বিল বেশি আসায় এ উপজেলার গ্রাহকদের মধ্যে হতাশ ও তীব্র ভোক্ষ দেখা দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বেতাগী পৌরসভা ও উপজেলার সর্বমোট ২৫ হাজার গ্রাহক রয়েছে। এদিকে করোনাকালীন এদুযোর্গের সময় সংক্রমনের ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে কর্তৃপক্ষ গত তিন মাসের বিল কোন জড়িমানা বিহীন আগামী ৩০/০৬/২০২০ খ্রি. তারিখের মধ্যে দেওয়ার সুযোগ পেয়েছে।

কিন্তু অতিরিক্ত বিল আসায় গ্রাহকদের মধ্যে এ নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে। এ অতিরিক্ত বিল কিভাবে পরিশোধ করা হবে বা এর সংশোধনের কোন সদোত্তর পাচ্ছেন না গ্রাহকরা।

বেতাগী ওয়াপদা রোডের মো, মজিবুর রহমানের আবাসিক বাসা বাড়িতে সাড়ে ৪ হাজার টাকা বিল এসেছে, যা পূর্বের বিলের তুলনায় দ্বিগুন বেশি। বেতাগী পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের ঢালী গ্রামের পুলিন বিহারী ঢালী’র এ বছরের জানুয়ারি মাসে বিল আসে ১১৫ টাকা এবং ফেব্রুয়ারি মাসে বিল আসে ১১৩ টাকা কিন্তু হঠাৎ করে মার্চ, এপ্রিল ও মে মাসে বিল আসে ৩৭১ টাকা, ৪০৫ টাকা করে। যা পূর্বে তুলনায় অনেকগুন বেশি। এ বিষয় সদর ইউনিয়নের বাসন্ডা গ্রামের গ্রাহক বাবুল বিশ্বাস বলেন,‘ আমরা পল্লীবিদ্যুতের এ মনগড়া বিল নিয়ে বিপাকে রয়েছে, অতিরিক্ত বিলের একটা সংশোধন করা দরকার।’

আবার অনেক গ্রাহকরা বলেছেন, পূর্বের বিল পরিশোধ করা সত্ত্বেও বর্তমান বিলের সাথে যোগ করে বকেয়া বিল হিসেবে তৈরি করা হয়েছে। পল্লী বিদ্যুত কর্তৃপক্ষের এমন মনগড়া বিল নিয়ে গ্রাহকদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে।

বেতাগী পল্লী বিদ্যুৎ উপ-কেন্দ্রের ইনচার্জ প্রকৌশলী মো.
আবুল বাশার বলেন,‘ নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহের কারণে ব্যবহারের পরিপান বেশি হওয়ায় গ্রাহকদের বিদ্যুৎ বিল বেশি মনে হচ্ছে। করোনার কারণে বিল রিডার বাড়িতে ঢুকতে পারেনি, তবে পরে সমন্বয় করা হবে। আমরা পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সাথে কথা বলেছি।’

এ বিষয় পটুয়াখালী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি বরগুনা আঞ্চলিক অফিসের ডিজিএম মো. সাইদুর রহমান বলেন,‘ আমাদের পল্লীবিদ্যুতে ভুতুরে ও ভুয়া বিলের সুযোগ নেই, মিটারের রিডিংয়ের চেয়ে অতিরিক্ত বিল হয়ে থাকলে এসব গ্রাহকদের বিল খতিয়ে দেখা হবে এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুণ :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরও খবর :
© All rights reserved © 2020 The Daily Dipanchal
Customized By BlogTheme